21 Nov 2017 - 03:11:06 am

ঐ দেখা যায় তাল গাছ, ঐ আমাদের গাঁ : ২৩ হাজার গাছ ৩ কোটি টাকা

Published on সোমবার, এপ্রিল ১৮, ২০১৬ at ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ
Print Friendly, PDF & Email

তিস্তা নিউজ২৪.কম : ঐ দেখা যায় তাল গাছ, ঐ আমাদের গাঁ । কবিতার লাইনটি আজ মহা মুল্যবান । কবিতার লাইনের মতই কালাইয়ের নিশ্চিন্তা, মোসলেমগঞ্জ, পাঠানপাড়া, দূর্গাপুর ও কুসুমসারা গ্রামে সারি সারি করে লাগোনো হযেছিল এই তালগাছ । লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা প্রায় ২৩ ঐ দেখা যায় তাল গাছ, ঐ আমাদের গাঁ : ২৩ হাজার গাছ ৩ কোটি টাকা হাজার তালগাছ এখন প্রায় ৩ কোটি টাকার সম্পদে পরিণত হয়েছে । জানা যায়া, ‘বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে’র (বিএমডিএ) বিপন্ন প্রজাতির উদ্ভীদ সংরক্ষণ কর্মসূচির আওতায় জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার ১৭ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশে সারি সারিভাবে রোপন করা ২৩ হাজার তালগাছ এখন প্রায় ৩ কোটি টাকার সম্পদে পরিণত হয়েছে । বিশেষজ্ঞদের অভিমত রোপনকৃত তালগাছ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বিভিন্ন  ভূমিকা রাখবে । বিএমডিএ কালাই জোন সূত্রে জানা গেছে,  ২০০৮-১০ অর্থ বছরে উপজেলার জয়পুরহাট-বগুড়া মহাসড়কেরা নিশ্চিন্তা হতে বাঁশের ব্রিজ এলাকা পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার, এবং মোসলেমগঞ্জ-পাঠানপাড়া সড়কের দূর্গাপুর হতে কুসুমসারা পর্যন্ত ৭ কিলোমিটার  দূরত্ব পর্যন্ত  রাস্তার দু’পাশে সারি সারি তালবীজ রোপন করা হয় । বীজ থেকে চারা গজিয়ে বর্তমানে সেগেুলো ৩ থেকে ৪ ফুট উচ্চতার এক একটি গাছে পরিণত হয়ে রাস্তার শোভা বর্ধন করছে । বিএমডিএ’র দাবি, উপজেলার ১৭ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশে রোপনকৃত অন্তত ২৩ হাজার তালগাছ এখন ৩ কোটি টাকার সম্পদে পরিণত হয়েছে বলে । এব্যাপারে কালাই জোনের সহকারী প্রকৌশলী (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মো. ইন্তোখাফ আলম জানান, বিপন্ন প্রজাতির উদ্ভীদ সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে বিএমডিএ এ উপজেলার ১৭ কিলোমিটার রাস্তার দুই পাশে তালগাছ রোপন করে পরিচর্যার ব্যবস্থা করে । অন্তত ২৩ হাজার এ তালগাছ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বিশেষ ভ‚মিকা রাখবে । এ বিষয়ে রাজশাহী সরকারী মহিলা কলেজের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আতাউল গণি এবং সহকারী অধ্যাপক প্রাণিবিদ্যা বিভাগ (এমফিল ফেলো) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যাল উম্মে হাবিবা জানান, যে কোন উদ্ভিতই পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সহায়ক। সেদিক থেকে বলা যায়, রোপনকৃত তালগাছগুলো বিভিন্নভাবে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ভূমিকা রাখবে। তাল গাছের শেকর ভ‚মির ক্ষয় রোধ করবে, ফলভোগী পাখিদের খাদ্যের যোগান দিবে এবং কিছু কিছু পাখির আবাসস্থলে পরিণত হবে । তারা আরও জানান, জীব-বৈচিত্র সংরক্ষণকারী আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান (আইইউসিএন) এ দেশের উদ্ভিদগুলোকে- ১. থ্রেটেন (হুমকির মুখোমুখী), ২. ইনডেনজার্ড (সঙ্কটাপন্ন) ও ক্রিটিক্যাল ইনডেনজার্ড (বিলুপ্ত প্রায়) এ তিনটি ভাগে ভাগ করেছেন। এর মধ্যে তালগাছের অবস্থান ইনডেনজার্ড অবস্থায় । তাদের দাবি, এখনি তাল গাছের সংরক্ষণে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে না পারলে অদূর ভবিষ্যতে এর অবস্থান ক্রিটিক্যাল ইনডেনজার্ড (বিলুপ্ত প্রায়) স্তরে পৌঁছুবে ।

আতাউর রহমান/ কালাই প্রতিনিধি

Print Friendly, PDF & Email