25 Sep 2017 - 12:11:10 pm

প্রেমে ব্যর্থ হলে কি করবেন?

Published on সোমবার, অক্টোবর ২৬, ২০১৫ at ৯:৩২ পূর্বাহ্ণ
Print Friendly, PDF & Email

http://tistanews24.com/wp-content/uploads/2015/10/0124.jpgবিনোদন ডেস্ক : একটা রিলেশনশিপ ভেঙে গিয়েছে সেজন্য আপনি মন খারাপ করবেন, আড়ালে গিয়ে কান্না করবেন এটা খুবই স্বাভাবিক। কারও সাথে আপনি আপনার পছন্দ-অপছন্দ শেয়ার করেছিলেন, কয়েক মাস/বছর তার সাথে ঘুরে বেড়িয়েছেন এখন সেই মানুষটি আপনার পাশে নেই সেজন্য আপনার মন খারাপ হওয়াটা অস্বাভাবিক না মোটেই। একটি রিলেশন ভেঙে যাবার পর পরই আপনার যা করণীয়-
প্রথম: নিজেকে সময় দিন
● এই সময়টুকু সম্পূর্ণ নিজের জন্যই রাখুন। আপনার কেন খারাপ লাগছে সেগুলোর একটা তালিকা তৈরী করুন এবং এই খারাপ লাগা থেকে আপনি কিভাবে মুক্তি পেতে চান সেটাও ছোট্ট করে টুকে রাখুন।
● একটি নির্দিষ্ট দিন ঠিক করুন, ওই তারিখের পর আর আপনি আপনার পুরান রিলেশনশিপ নিয়ে চিন্তা করবেন না এই রকম সিদ্ধান্ত নিন। হ্যাঁ, এটা হয়তো আপনাকে আপনার আগের সম্পর্ক পুরোপুরি আপনার মাথা থেকে ডিলিট করে দেবে না তারপরও ডিলিট করার প্রস্তুতিতে আপনাকে হেল্প করবে অনেকটাই।

দ্বিতীয় : নিজেকে হাল্কা হতে দিন

আপনার যদি বালিশে মুখ লুকিয়ে সারা দিন কান্না করতে ইচ্ছা করে তাহলে করুন না। কেউ তো আপনাকে আঁটকে রাখে নি। কোন বন্ধুর সাথে যদি আপনার এই সময়কার কষ্টগুলো শেয়ার করতে চান তাও করতে পারেন। বন্ধুর কাঁধে মাথা রেখেও কান্না করতে পারেন অঝর ধারায়।

একটি রিলেশন ভেঙ্গে যাবার পর আপনার আগের প্রেমিক/প্রেমিকাকে জেলাস করার জন্য তড়িঘড়ি করে অন্য আরেকজনের সাথে রিলেশনে জড়িয়ে পরবেন না। একটু সময় নিন, নিজেকে একটু সময় দিন।

তৃতীয় : কেন রিলেশন ভেঙে গেল?

কি কি কারণে আপনার রিলেশন ভেঙে গেল তা নোট করুন অথবা ফোনে সেইভ করে রাখুন। ‘কেন ওর সাথে ব্রেক আপ করলাম?’ ‘কেন আমি ওকে পেলাম না?’- এই রকম চিন্তাগুলি যখনই আপনার মাথায় আসবে তখনই আপনি ওই নোটটি পড়ুন।

চতুর্থ : নিজের ইমোশনের দুর্বল জায়গাগুলো খুঁজে বের করুন

এই সময়টিতে অপরাধবোধ, অনুতাপ আপনার কনফিডেন্স অনেকাংশেই কমিয়ে দিবে। নিজের ইমোশনের দুর্বল জায়গাগুলো খুঁজে বের করে লিপিবদ্ধ করুন। এই দুর্বল জায়গাগুলো কিভাবে শক্তিশালী করা যায় তা চিন্তা করে বের করুন। প্রয়োজনে বন্ধু, অভিভাবকের সহায়তা নিন।

পঞ্চম : নিজের ক্ষতি করা থেকে বিরত থাকুন

অনেককেই দেখছি প্রেমিক/প্রেমিকার সাথে ঝগড়া হলে বা মতের অমিল হলে ব্লেড দিয়ে চুল, দাড়ি কাঁটা বাদ দিয়ে হাত-পা কাঁটা শুরু করে দেয়। আরে বাবা ব্লেড কি আপনার হাত/পা কাঁটার জন্য তৈরি করা হয়েছে?

ছুরি, দা, বটি, কাঁচি, ব্লেড দিয়ে হাত-পা কাঁটা থেকে বিরত থাকুন। এগুলো কি আপনাকে কোন সমাধান এনে দিবে?
আর একান্তই যদি আপনি আপনার ক্ষতি করতে চান তাহলে কেন আপনি এই হাত-পা কাঁটাকাঁটি করবেন? অন্য কিছুতে আপনার এই ক্ষতি করার ইচ্ছাটিকে কনভার্ট করে ফেলুন। সাইকেল চালান, ঘণ্টার পর ঘণ্টা বই পড়ুন, লেখালেখি করুন। ওকে

Print Friendly, PDF & Email