25 Nov 2017 - 12:39:16 am

গত ১৮ মাসে মেসি-রোনাল্ডো : কে কোথায়

Published on বৃহস্পতিবার, মে ১১, ২০১৭ at ৪:০৬ অপরাহ্ণ
Print Friendly, PDF & Email

গত ১৮ মাসে মেসি-রোনাল্ডো : কে কোথায়তিস্তা নিউজ ডেস্ক: জার্মান কিংবদন্তি লোথার মাথাউজ বলে দিলেন গত ১৮ মাসের বিচারে ক্রিশ্চিয়ানো বিশ্বের সেরা ফুটবলার রোনাল্ডো। মাথাউজের মতে লিওনেল মেসির চেয়েও এই ১৮ মাসে এগিয়ে রোনাল্ডো!
নিজের মতের ব্যাখ্যা করতে গিয়ে জার্মানির বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক বলেছেন, ‘‘রোনাল্ডো’কে থামানো সত্যিই কঠিন। পায়ে বল নিয়ে রোনাল্ডোর মতো বিপজ্জনক স্ট্রাইকার নেই বললেই চলে।’’ মাথাউজের বিশ্লেষণে রোনাল্ডোর সেরা হওয়ার অন্যতম কারণ হিসাবে উঠে এসেছে রিয়াল মাদ্রিদ অধিনায়কের সামগ্রিক দক্ষতা। মাথাউজ বলেছেন, ‘‘দু’পায়ে নিখুঁত শট মারার দক্ষতা, দুরন্ত হেডিং দক্ষতা এবং প্রচণ্ড গতি— এই তিনটে গুণের ধারাবাহিক প্রয়োগ রোনাল্ডোর মতো কাউকে করতে দেখিনি। ফুটবল ইতিহাসে অনেক গ্রেট স্ট্রাইকার এসেছে, কিন্তু রোনাল্ডো ব্যাতিক্রম।’’
মাথাউজ উদাহরণ দিয়েছেন আরও এক কিংবদন্তি জার্মান স্ট্রাইকার, গার্ড মুলারের। বলেছেন, ‘‘আমরা মুলারের অবিশ্বাস্য গোলদক্ষতার কথা প্রায়ই বলি। কিন্তু এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রোনাল্ডোর গোল করা দেখে বলছি, ও মাঠের যে কোনও জায়গা থেকে গোল করে দিতে পারে। গার্ড মুলার’কে গোল করার জন্য বল বক্সে বাড়াতে হতো। বক্সের বাইরে মুলার নিস্প্রভই থাকতেন।’’
মাথাউজের বিশ্লেষণে উঠে এসেছে লিওনেল মেসির নামও। জার্মান ডিফেন্ডার দাবি করেছেন, ‘‘মেসি দারুণ, কিন্তু রোনাল্ডোর মতো ও পারে না মাঠে যে কোনও জায়গা থেকে গোল করে দিতে। বায়ার্ন মিউনিখ ম্যাচটার কথা ভাবুন, ওরকম চোখ ধাঁধানো গোল রোনাল্ডোর পক্ষেই করা সম্ভব। এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এখনও পর্যন্ত তিন ম্যাচে ক্রিশ্চিয়ানো গোল করেছে আটটা! স্বপ্নের পরিসংখ্যান।’’
একইসঙ্গে মাথাউজ প্রশংসা করেছেন রিয়াল মাদ্রিদ ম্যানেজার জিনেদিন জিদানেরও। বলেছেন, ‘‘১৮ মাস আগে রিয়াল ওকে ম্যানেজার হিসাবে নিয়ে আসার সময় ফুটবলবিশ্বে অনেকেই সংশয় প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু আমি নিশ্চিত ছিলাম যে, কোচ হিসাবেও জিজু সফল হবে। রিজার্ভ বেঞ্চে জিজু’র বসা দলের গ্রেট ফুটবলারদের কাছেও প্রেরণা হয়েছে। কারণ ফুটবলার হিসাবে জিদান নিজেও ছিল গ্রেট।’’ মাথাউজের ভাষায়, জিদান শুধু রোনাল্ডো বা গ্যারেথ বেল’দের জন্য নয়, মার্কোস অ্যালোন্সোর মতো তরুণ প্রজন্মের ফুটবলারদের কাছেও অনুপ্রেরণা। মাথাউজ বলেছেন, ‘‘সিনিয়রদের সঙ্গে জিদান তরুণ ফুটবলারদেরও খেলিয়ে ভারসাম্য এনেছে।’’
১৯৯০-এ বিশ্বকাপ জয়ই তার ফুটবলজীবনের সেরা স্মৃতি। মাথাউজ জানিয়েছেন, বিশ্বকাপটা ইতালিতে হলেও ইতালির সমর্থকদের সমর্থন মাথাউজ জীবনেও ভুলবেন না।

 
Print Friendly, PDF & Email