25 Nov 2017 - 12:32:20 am

সরকার সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বিধানে ব্যর্থ

Published on বৃহস্পতিবার, আগস্ট ৩, ২০১৭ at ৮:৪৬ অপরাহ্ণ
Print Friendly, PDF & Email

পটুয়াখালী প্রতিনিধি: পটুয়াখালী জেলার দশমিনা উপজেলা শহরে পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া সম্পত্তিতে কানন বালা ও তার পরিবার বসবাস করে আসছে। গত ৮ মে ২০১৭ কানন বালার সন্তানরা বাড়িতে না থাকায় আবুল হোসেন প্যাদা কতিপয় সন্ত্রাসীসহ ধারালো অস্ত্র নিয়ে কানন বালাকে বিবস্ত্র করে হাত-পা
সরকার সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বিধানে ব্যর্থবেধে মারধর করে এবং কানন বালার একমাত্র আশ্রয়স্থান দখল করে সেখানে ঘর তোলে। স্থানীয় বিবেকবান মানুষ পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে কানন বালাকে উদ্ধার করে। যারা কানন বালার পরিবারের উপর এমন নির্মম নির্যাতন চালিয়েছে তারাই আবার কানন বালার পরিবারকে চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করে হয়রানি করছে।ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কানন বালার পরিবার অনশন কর্মসূচি পালন করে। অনশন কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, এনডিপি ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, কল্যাণ পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদুর রহমান তামান্না, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য বাসু দেব প্রমুখ। এসময় নিজের দুর্দশার কথা তুলে ধরে ক্ষতিগ্রস্ত কানন বালা। আরো উপস্থিত ছিলেন কানন বালার পুত্র অসীম চন্দ্র দাস, পুত্রবধু মাধবী রাণী, নাতি অন্তর রাণী, অধরা রাণী, ভাগিনা মিঠুন চন্দ্র দাসসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। কানন বালা বলেন, সেদিন মোর উপর যে অত্যাচার হয়েছিল মুই তা আপনাগো সামনে কইতে পারমু না। তয় এইটুক কই হেরা মানুষ না। মোর হাত-পা দেহুন, হেগো আঘাতের দাগ শুকায় নাই। এ কথা বলতে বলতে তিনি কেঁদে ওঠেন। তিনি তার আশ্রয় ফেরত চান এবং মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেছেন, সমাজের ও রাষ্ট্রের মূল্যবোধের এতটাই অবনতি ঘটেছে যে, আজ সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই। জনপ্রতিনিধিরা যেখানে জনগনের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করবে, সেখানে তারাই জনগনের সম্পদ লুণ্ঠন করছে। তিনি বলেন, সরকার সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বিধানে ব্যর্থ। শাসকগোস্টির ব্যর্থতার কারণ আজ লুটেরারা জনপ্রতিনিধি হয়ে জনগনের সম্পদই লুন্ঠনে ব্যর্থ হয়ে পড়েছে। বাংলাদেশের হাজার বছরের ঐতিহ্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে পরিত্রানের লক্ষে দেশপ্রেমিক সরকার প্রতিষ্ঠার বিকল্প নাই্। তিনি অবিলম্বে কাননবালা পরিবারের সমস্যা সমাধানে দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেন। মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা বলেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে কানন বালাকে তার আশ্রয়স্থল ফেরত এবং তাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা না হলে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বরাবর মানবাধিকার সমিতির পক্ষ থেকে স্মারকলিপি প্রদান করা হবে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার নিজেদেরকে সংখ্যালঘু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক-বাহক মনে করলেও বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশী নির্যাতনের শিকার হচ্ছে সংখ্যালঘুরা এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হত্যা করে গণতন্ত্রকে গুম করা হয়েছে। আর এ কারণেই ষাটোর্ধ্ব কানন বালাকে পাষন্ডরা বিপর্যস্ত করে তার উপর নির্যাতন চালিয়ে তাকে ঘরবাড়ি ছাড়া করেছে। এটি কোন সভ্য সমাজের খবর হতে পারে না। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email