21 Nov 2017 - 02:55:43 am

নাটোরে চাঁদা না দেয়ায় ট্রাক চালককে রড দিয়ে পেটালো সার্জেন্ট

Published on মঙ্গলবার, আগস্ট ২২, ২০১৭ at ৯:০৭ অপরাহ্ণ
Print Friendly, PDF & Email

নাটোর সংবাদদাতা:  নাটোরে মঙ্গলবার বিকেলে পুলিশ সার্জেন্ট রুহুল আমিনকে ৫হাজার টাকা চাঁদা না দেয়ায় এক ট্রাক চালককে প্রকাশ্যে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুত্বরভাবে আহত করেছে। ঘটনার প্রতিবাদে ঘটনাস্থল বড়াইগ্রাম উপজেলার আহম্মেদপুরে প্রায় দেড় ঘন্টা নাটোর-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে এলাকাবাসী ও পরিবহন শ্রমিকরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, নাটোরের হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট রুহুল আমিন বিকেলে নাটোর শহরতলীর বড় হরিশপুর এলাকায় ট্রাকের কাগজপত্র চেক করছিলেন। বিকেল চারটার দিকে লালমনিরহাট থেবে কুষ্টিয়াগামী তামাক বহনকারী ট্রাক (ঢাকা -মেট্রো -ট-১৪-৮৫৬৪) থামিয়ে ৫হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। ট্রাক চালক নিজাম উদ্দিন নাটোরে চাঁদা না দেয়ায় ট্রাক চালককে রড দিয়ে পেটালো সার্জেন্টএসময় সাতশত টাকা দিতে চায়। বেশি টাকা না দেয়ায় বির্তকের এক ফাকে চালক ট্রাক চালিয়ে কুষ্টিয়ার দিকে রওনা হয়। পরে প্রায় ১২ কিলোমিটার তাড়িয়ে নিয়ে গিয়ে বড়াইগ্রাম উপজেলার আহম্মেদপুরে ব্যারিকেট দিয়ে সার্জেন্ট রুহুল আমিন ট্রাক থামিয়ে পাশের রডের দোকান থেকে একটা রড নিয়ে প্রকাশ্যে পিটিয়ে গুরুত্বরভাবে আহত করে। ঘটনার প্রতিবাদে এবং সার্জেন্ট রুহুল আমিনের বিচার দাবীতে তাকে আটকে রেখে বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত প্রায় দেড় ঘন্টা নাটোর-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে এলাকাবাসী ও পরিবহন শ্রমিকরা। ঘটনার বিচার দাবীতে অবরোধের সময় আহম্মেদপুরে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, নাটোর জেলা ট্যাংক লরি কার্ভাড ভ্যান পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোস্তারুল ইসলাম আলম, সেক্রেটারী শেখ ইয়াকুব আলী হিরা এবং আওয়ামী মোটর চালক লীগের জেলা সভাপতি বকুল হোসেন। এ সময় মহসড়কের উভয়পাশে শত শত যানবাহন আটকে পড়ে। আহত ট্রাক চালক কুস্টিয়া জেলার আল্লাহর দরগা এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে নিজাম উদ্দিনকে আহম্মেদপুরের একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে সন্ধ্যার দিকে বড়াইগ্রাম থানার ওসি শাহরিয়ার খান, বনপাড়া হাইওয়ে থানার ওসি জিএম শামসুন নূর ও ঝলমলিয়া হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ মোঃ শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে গিয়ে সার্জেন্ট রুহুল আমিনের বিচারের আশ্বাস দিলে অবরোধকারীরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেন। তবে ঝলমলিয়া হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ মোঃ শফিকুল ইসলাম বলেছেন, সার্জেন্ট রুহুল আমিন হাইওয়ে নয় জেলা পুলিশের সার্জেন্ট।

Print Friendly, PDF & Email