15 Dec 2017 - 04:34:10 am

ডিমলায় নকল সার কারখানা থেকে বিপুল পরিমান ইটের গুড়াসহ নকল সার উদ্ধার

Published on সোমবার, নভেম্বর ২৭, ২০১৭ at ২:০৩ অপরাহ্ণ
Print Friendly, PDF & Email

ডিমলায় নকল সার কারখানা থেকে বিপুল পরিমান ইটের গুড়াসহ নকল সার উদ্ধারসরদার হযরত আলী, স্টাফ রিপোর্টার: নীলফামারীর ডিমলায় প্রশাসনের অভিযানে ভেজাল সার কারখানার সন্ধান মিলেছে। অভিযানকালে বিপুল পরিমান নকল ও ভেজাল আটক করলে ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি প্রশাসন। এ ঘটনার ২জনকে আসামী করে মামলা করেছে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার।স্টাফ

পুলিশ জানায়, গতকাল (রোববার) সন্ধায় নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার তপন কুমার রায় গোপনে সংবাদ পান যে, উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গার হাটে একটি ভেজাল সার কারখানায় নকল ও ভেজাল সার তৈরী করে তা বাজারজাত করা হচ্ছে। এমতাবস্থায় উপজেলা নিবার্হী অফিসার ও ভ্রাম্যমান আদালতের নিবার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট নাজমুন নাহারের নেতৃত্বে পুলিশের সহায়তায় সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় এমএসএগ্রো ম্যার্কেটিং নামে একটি ভেজার সার কারখানার সন্ধান মিলে। এ কারখানা থেকে ডলোমাইট ৪০ কেজির ৮০ বস্তা, তাজা বোরাক্স ১ কেজির ১১০ প্যাকেট, জিংক সালফেট মনোহাইড্রেট ১ কেজির ১২০ প্যাকেট, তেজি জৈব সার ৫০ কেজি করে ৩ বস্তা, এমক্লোব ১ কেজি ওজনের ২৫০প্যাকেট, ইটের গুড়া ৫০ কেজি ওজনের ২ বস্তা, ডায়াজিনন ১ কেজি ওজনের ২৪০ প্যাকেট, প্যাকিং মেশিন ১টি, ডিজিটাল স্কেল ১টি উদ্ধার করেন।

পরে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা তপন কুমার রায় বাদী হয়ে বালাপাড়া ইউনিয়নের ছাতনাই বালাপাড়া গ্রামের চাবুল ইসলামের পুত্র হাসনাত কবির স্বপন (৪০) ও এনামুল হক বসুনিয়ার পুত্র রানা ইসলাম (৩৭) কে আসামী করে একটি মামলা করেন।

ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে  সাংবাদদিকদের বলেন, ছাতনাই বালাপাড়া গ্রামের চাবুল হোসেনের ছেলে হাসনাত কবির স্বপনের মালিকানাধীন এই ভেজার সার কারখানার সার তৈরির মাটি, ইটের গুড়া, বালু, রং এবং বিভিন্ন কোম্পানীর নামে ছাপানো সারের প্যাকেট পাওয়া গেছে। এ সময় ভেজার সারের মালিক অভিযানের আগেই পালিয়ে গেছে। ভেজার সার কারখারটি সিলগালা করা হয়েছে।#

 

Print Friendly, PDF & Email