নাটোরে চার জেএমবি সদস্য আটক অপর দুজনকে ২০ বছর করে কারাদন্ড
১৩ মার্চ '১৮
0 Shares

নাটোরে চার জেএমবি সদস্য আটক অপর দুজনকে ২০ বছর করে কারাদন্ড

মোঃ শহীদুল হক সরকার, নাটোর: নাটোরে সন্ত্রাস বিরোধী আইন ও সন্ত্রাস মূলক কর্মকান্ডের পৃথক ধারায় দুই জেএমবি সদস্যকে ২০ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। দন্ডপ্রাপ্তরা হলো ময়মনসিংহ জেলার ফুলবাড়ি উপজেলার রাধাকানাই এলাকার ইউনুস আলীর ছেলে রাসেল আহম্মেদ ওরফে তামিম (৩৫) এবং নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার চকবিষ্টপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে মোজাম্মেল হক (৪০)।

নাটোরে চার জেএমবি সদস্য আটক অপর দুজনকে ২০ বছর করে কারাদন্ড

২০ বছরের দন্ডপ্রাপ্ত রাসেল আহম্মেদ ওরফে তামিম এবং মোজাম্মেল হক

আজ মঙ্গলবার দুপুরে নাটোরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রেজাউল করিম মোল্লা এই আদেশ দেন। অপরদিকে নাটোরের উত্তরা গণভবণ এলাকার একটি বাড়িতে রাতভর অভিযান চালিয়ে চার জেএমবি সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

নাটোর জজ কোর্টের পিপি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম জানান, ২০১৫ সালের ১৪ জুলাই নাটোর শহরের বনবেলঘড়িয়া এলাকায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালায় র‌্যাব-৫। এ সময় রাজশাহীগামী একটি হিউম্যান হলারে তল্লাশি চালিয়ে একটি বিদেশী পিস্তল, ম্যাগজিন, কার্তুজ এবং জিহাদী বই ও টাকা সহ জেএমবি সদস্য রাসেল আহম্মেদ ওরফে তামিম এবং মোজাম্মেল হককে আটক করে। পরে এঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা হলে দীর্ঘ সাক্ষ্য প্রমান শেষে মঙ্গলবার দুপুরে বিচারক তাদের প্রত্যেককে দুটি ধারায় ২০ বছর করে কারাদন্ড এবং ২০হাজার টাকা জরিমানা করে।
এদিকে নাটোরের পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেছেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত রাতে নাটোরের উত্তরা গণভবণ এলাকার পিছনের একটি বাড়ি ঘেরাও করে পুলিশ। পরে তাদের আত্মসমর্পন করতে বলা হলে প্রথমে তারা বের হয়নি। পরে পুলিশ ৯ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করছে ভোর ৫টারদিকে প্রথমে একজন ও পরে আরো তিনজন বেরিয়ে এসে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পন করে। আটককৃতরা হলো বাগাতিপাড়া উপজেলার চাপাপুকুর গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে শফিকুল ইসলাম (২৪), একই গ্রামের ভিক্ষু মন্ডলের ছেলে ফজলুর রহমান (৩৮), সিংড়া উপজেলার আরকান্দি গ্রামের ইউনুস আলীর ছেলে আনিসুর রহমান(৪০) এবং নলডাঙ্গা উপজেলার খোলাবাড়িয়া গ্রামের ফজলার রহমানের ছেলে জাকির হোসেন মাষ্টার (৩৮)।
এ সময় বাড়ীটি তল্লাশী করে ৫টি হাত বোমা, দুই লিটার পেট্রল, একটি লেপটপ ও একটি মোটর সাইকেল পাওয়া যায়। পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার আরো বলেছেন, একই এলাকার দিঘাপতিয়া এম কে অনার্স কলেজের ছাত্র আমির হামজা কিছুদিন আগে এই বাড়িটি ভাড়া নিয়েছিল। তবে ঘটনার সময় আমির হামজাকে আটক করা সম্ভব হয় নাই।
এদিকে স্থানীয়রা জানিয়েছে, আটককৃত চারজনের মধ্যে জাকির হোসেন মাষ্টারকে চারদিন আগে স্কুলে যাওয়ার সময় র‌্যাব পরিচয়ে তুৃলে নেয়া হয়েছিল, তবে এমন দাবী অস্কীকার করেছে নাটোরের র‌্যাব ও পুলিশ। অন্য দিকে আটক বাগাতিপাড়া উপজেলার শফিকুল ইসলাম ও ফজলুর রহমান তিনদিন আগে নিখোঁজ হলে পরিবারের পক্ষ থেকে বাগাতিপাড়া মডেল থানায় জিডি করা হয়েছিল।

 

Print Friendly, PDF & Email

About dimlanews

Related Posts

    No posts found.

Leave a Reply

*

সম্পাদকের বক্তব্যঃ

তিস্তা নিউজ ২৪ ডটকম ভিজিট করুন এবং বিজ্ঞাপন দিন।