• Home »
  • সারাদেশ »
  • মাদারীপুরে একজনের মৃত্যু খবরে ! আবারো দুগ্রুপে সংঘর্ষ
মাদারীপুরে একজনের মৃত্যু খবরে ! আবারো দুগ্রুপে সংঘর্ষ
২৪ জুন '১৮

dimlanews

তিস্তা নিউজ ২৪ ডটকম এর প্রকাশিত সংবাদ গুলো পড়ুন এবং মন্তব্য করুন।

0 Shares

মাদারীপুরে একজনের মৃত্যু খবরে ! আবারো দুগ্রুপে সংঘর্ষ

 
সাব্বির হোসাইন আজিজ, মাদারীপুর : মাদারীপুরের কালকিনিতে দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় আহত সোনামিয়া ফকির নামে এক ব্যক্তি চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত ৮দিকে মারা গেছে। নিহতের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে আবারও দুই গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। নিহত সোনা মিয়া ফকির কালকিনির সাহেবরামপুর ইউনিয়নের আন্ডারচর গ্রামের হাসু ফকিরের ছেলে।
 
স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মাদারীপুরের কালকিনিতে শুক্রবার দু’পক্ষের রক্তক্ষয়ী দফায়-দফায় সংঘর্ষ হয়। এসময় সোনামিয়া গুরুতর আহত হয়। আহত অবস্থায় প্রথমে তাকে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কপপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য  ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোনামিয়া মারা যায়। এই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শনিবার রাত ৮টার দিকে আবার দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। পরে খবর পেয়ে কালকিনি থানা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।
 
উল্লেখ্য : মাদারীপুরের কালকিনিতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সাবেক ও বর্তমান ইউপি সদস্যের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার সকালে উপজেলার সাহেবরামপুর ইউনিয়নের আন্ডারচর এলাকায় এ সংঘর্ষ হয়। এ সময় বেশ কয়েকটি হাত বোমা বিস্ফোরিত হয়। এতে উভয় পক্ষের আহত হয় অন্তত ১০ জন। 
কালকিনি উপজেলার সাহেবরাপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়াড সদস্য নেছার গোমাস্তার সাথে একই এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য শহীদুল আকনের বিরোধ চলছিল।
 শুক্রবার সকালে নেছার গোমাস্তার সমর্থক সেকেন ঢালী আন্ডারচর বাজারে এলে শহীদুল আকনের সমার্থক জামাল আকনের বাগবিতন্ডা বাধে। এরই জের ধরে দুই পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে কালকিনি থানার পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়। আহতদের কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়ার পরে ঢাকা ও বরিশালে পাঠানো হয়েছে।
সাহেবরাপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়াড সদস্য নেছার গোমাস্তা বলেন, ইউপি নির্বাচনে পরাজয়ের পর আন্ডারচর বাজারে আমার সমর্থিত কোন লোক গেলেই তাকে শহীদুল আকন ও তার লোকজন মারধর করেন। এর আগেও এমন ঘটনা ঘটেছে। আমি বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছি। 
সাবেক ইউপি সদস্য শহীদুল আকন বলেন, আমার কারো সাথে কোন বিরোধ নেই। নেছার এলাকায় তার ক্ষমতার প্রভাব দেখায়। তাই সে আমার সর্মথকদের রাস্তা ঘাটে যেখানেই পায় সেখানেই মারধর করে। পরে পুলিশ দ্বারা আমাদের হয়রানির শিকার হতে হয়। 
 
মাদারীপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Print Friendly, PDF & Email

About dimlanews

তিস্তা নিউজ ২৪ ডটকম এর প্রকাশিত সংবাদ গুলো পড়ুন এবং মন্তব্য করুন।

Related Posts

Leave a Reply

*

সম্পাদকের বক্তব্যঃ

তিস্তা নিউজ ২৪ ডটকম ভিজিট করুন এবং বিজ্ঞাপন দিন।