নাটোরের ব্রেকিং নিউজ
৩ জুলা '১৮
0 Shares

নাটোরের ব্রেকিং নিউজ

মো. শহীদুল হক সরকার,নাটোর সংবাদদাতা: নাটোরে হেরোইন রাখার দায়ে নুরুল ইসলাম (৩৮) নামে একজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত।

সোমবার দুপুরে নাটোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রেজাউল করিম এই আদেশ দেন। দন্ডপ্রাপ্ত নুরুল ইসলাম রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার ধর্মঘাটা এলাকার ওয়াজ উদ্দিনের ছেলে।
নাটোর জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম জানান, ২০১১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বড়াইগ্রাম উপজেলার রাথুরিয়া এলাকায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা এমপি সাফারি নামের একটি যাত্রীবাহি বাসে তল্লাশি চালায় নাটোর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। এসময় এক’শ গ্রাম হেরোইন সহ নুরুল ইসলাম কে আটক করা হয়। পরে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক আমিনুল কবির বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলার দীর্ঘ সাক্ষ্য প্রমান শেষে বিচারক নুরুল ইসলামকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেন।

                                নাটোরে জাল টাকা সহ ২ ব্যবসায়ী আটক: চার লাখ ৪০ হাজার জাল টাকা উদ্ধার

নাটোরের সিংড়ায় চার লাখ ৪০ হাজার জাল টাকা সহ দুই ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-৫। রোববার রাত সাড়ে ১০টায় সিংড়া পৌর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হল সিংড়া উপজেলার ৮ নম্বর শেরকোল ইউনিয়নের আগপাড়া মহল্লার মৃত দেছের আলীর মোল্লার ছেলে সামাদ আলী মোল্লা (৩১) ও একই এলাকার মৃত এরশাদ আলী সরকারের ছেলে কিসমান আলী সরকার ওরফে জদু সরকার (৩৮)।
সিংড়া থানা পুলিশ সূত্রে জানাযায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোববার সন্ধ্যায় সিংড়া পৌর এলাকায় বিশেষ অভিযান শুরু করে র‌্যাব-৫ এর একটি দল। অভিযানের এক পর্যায়ে তারা জানতে পারে স্থানীয় এক ধান ব্যবসায়ী কাঞ্চন পালের সাথে সামাদ আলী মোল্লা ও কিসমান আলী সরকারের বড় অংকের একটি লেনদেন হবে। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা পৌরসভা এলাকায় অবস্থান নেয়। পরে সামাদ মোল্লা ও কিসমান আলী তাদের কাছে পাওনা চার লাখ ৪০ হাজার টাকা কাঞ্চন পালকে বুঝিয়ে দেয়। রাত সাড়ে ১০টার দিকে র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদের ওই জাল টাকা সহ আটক করে। আটককৃত সামাদ আলী মোল্লা ধান ব্যবসায়ী ও কিসমান আলী সরকার ওরফে জদু সরকার এলাকায় সুদে কারবারী হিসেবে পরিচিত বলে জানান এলাকাবাসী। পরে আটককৃতদের বিরুদ্ধে সিংড়ায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। র‌্যাব-৫ সিপিসি ২ এর কমান্ডার মেজর শিবলী মোস্তফা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

                               নাটোরে জমির জন্য মাকে হত্যার চার মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলণ

নাটোরে জমির জন্য মাকে হত্যার চার মাস পর আদালতের নির্দেশে কবর থেকে জুলেখা বেওয়া (৮০) নামে এক বৃদ্ধ মহিলার লাশ উত্তোলণ করা হয়েছে। নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের নির্দেশে সোমবার সকালে পুলিশের তত্ত্বাবধানে নাটোর সদর উপজেলা একডালা বনবেলঘড়িয়া কবরস্থান থেকে উত্তোলণ করে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে মামলা তদন্তের জন্য পরীক্ষা-নিরিক্ষার করা হয়। দুপুরের পরে ধর্মীয় বিধান মতে আবারও জুলেখা বেওয়ার লাশ একই কবরস্থানে দাফন করা হয়।
মামলার আর্জিতে বলা হয়, জুলেখা বেওয়ার মেয়ে নিগার সুলতানা, নুরুন্নাহার নুরু, ফাহিমা আখতার মিঠু এবং নিগার সুলতার স্বামী মোঃ ইসমাইল হোসেন দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ থাকা জেলেখা বেওয়ার নিজ নামীয় সম্পত্তি লিখিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে আসছিলেন। জুলেখা বেওয়া রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসা নিয়ে নাটোরের বনবেলঘড়িয়া একালায় ছেলে আবুল কাশেমের বাড়িতে ফিরে আসেন। আবুল কাশেম বাড়িতে না থাকার সুযোগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি সকালে মৃত্যু শয্যায় থাকা মাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধেই চিকিৎসার নাম করে ওই বাড়ি থেকে বের করে নিয়ে গিয়ে তাদের নামে জমি লিখে দিতে চাপ দেন। জমি রেজিষ্ট্রি করে দিতে অস্বীকৃতি জানালে তারা অসুস্থ জুলেখা বেওয়াকে তারা গালিগালাজ করে এবং শেষ পর্যন্ত রাজি না হওয়ায় তাকে হত্যা করে অন্য এক মহিলাকে মা সাজিয়ে একই দিনে নাটোর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে গিয়ে জমি রেজিষ্ট্রি করিয়ে নেন। তেবাড়িয়া ইউনিয়নের বনবেলঘড়িয়া মৌজার ৬৫ শতাংশ আবাদি ওই জমি নিগার সুলতান নিপাা, নুরুন্নাহার নুরু, ফাহিমা আখতার মিঠু এবং নাজমা খাতুন ফেন্সি (ভাগ্নী) নিজেদের নামে রেজিষ্ট্রি করে নেয়। ওই জমির মূল্য দেখানো হয়েছে প্রায় ২৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা। মাকে হত্যার পর অসুস্থ হয়ে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে মারা গেছে এমন খবর জানতে পেরে ছেলে আবুল কাশেম ও মোঃ মোজাম্মেল নাটোর হাসপাতালে গিয়ে তার মাকে দেখতে না পেয়ে বাড়িতে ফিরে এসে বিকেলে জানতে পারেন তার ওইসব বোন, তাদের স্বামী এবং স্থানীয় দু’কয়েকজন যোগসাজস করে তার মা জুলেখা বেওয়াকে হাসপাতালে না নিয়ে এবং তাদের না জানিয়েই তড়িঘড়ি করে একডালা বনবেলঘড়িয়া কবরস্থানে দাফন করেছে। এসব খবর জানার পর জুলেখা বেওয়ার ছেলে আবুল কাশেম বাদী হয়ে নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১ এপ্রিল একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তের প্রয়োজনে লাশ উত্তোলণের আদেশ চাওয়া হলে নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট লাশ উত্তোলণের নির্দেশ দেন।

 

Print Friendly, PDF & Email

About dimlanews

Related Posts

Leave a Reply

*

সম্পাদকের বক্তব্যঃ

তিস্তা নিউজ ২৪ ডটকম ভিজিট করুন এবং বিজ্ঞাপন দিন।