• Home »
  • নীলফামারী »
  • দোকান হস্তান্তরে প্রতারণা : সৈয়দপুর প্লাজার প্রকল্প পরিচালকসহ ৬ জনের নামে মামলা
দোকান হস্তান্তরে প্রতারণা : সৈয়দপুর প্লাজার প্রকল্প পরিচালকসহ ৬ জনের নামে মামলা
৭ জুলা '১৮
0 Shares

দোকান হস্তান্তরে প্রতারণা : সৈয়দপুর প্লাজার প্রকল্প পরিচালকসহ ৬ জনের নামে মামলা

মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি: সৈয়দপুর প্লাজা মার্কেটে ক্রয় করা দোকান হস্তান্তর না করায় প্রতারণার মামলা হয়েছে। মামলাটি দায়ের করেছেন প্রতারণার শিকার ব্যবসায়ী মমিনুল ইসলাম মিঠু। গত ২৭ জুন সৈয়দপুর থানায় দায়ের করা মামলায় মার্কেটের প্রকল্প পরিচালক গোলজার হোসেন (৫৯) ও দোকান বিক্রেতা শাহজাহান আলী কাজলসহ (৩৩) ৬ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এর অন্য অভিযুক্তরা হলেন মনসুর আলী (৫৫), মো. বাবুল (৩৫), আফজাল হোসেন (৪৫) ও তার স্ত্রী হেলেনা আফজাল (৪০)।
দায়ের করা মামলায় বলা হয়, শহরের শেরে বাংলা সড়কে সৈয়দপুর প্লাজা মার্কেটের মিঠু কম্পিউটার এন্ড মোবাইল জগৎ-এর মালিক মমিনুল ইসলাম মিঠু গত বছরের ৫ আগস্ট ২৬ লাখ টাকায় একটি দোকান ক্রয় করেন। প্লাজা মার্কেটের নিচ তলায় আই ব্লকে অবস্থিত ১৫ নম্বর দোকানের বিক্রেতা শাহজাহান আলী কাজলের সঙ্গে ক্রয় চুক্তি সম্পাদন করা হয়। মার্কেটের নীতিমালা মেনে সম্পাদিত চুক্তিতে স্বাক্ষী হিসাবে স্বাক্ষর করে প্লাজা মার্কেটের প্রকল্প পরিচালক গোলজার হোসেন। এ সময় কয়েক দিনের মধ্যে দোকান হস্তান্তরের প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। পরবর্তী সময়ে দোকান হস্তান্তর না করে নানা অজুহাতে টালবাহানা শুরু করা হয়। এক পর্যায়ে প্রকল্প পরিচালক ও দোকান বিক্রেতাসহ তাদের সহযোগী নতুন বাবুপাড়া এলাকার মনসুর আলী, মো. বাবলু এবং বাঙ্গালীপুর ইউপির লক্ষণপুর বাড়াইশালপাড়ার আফজাল হোসেন ও হেলেনা আফজাল দোকান আত্মসাতের চক্রান্তে লিপ্ত হয়। গত ৮ জুন সংশ্লিষ্টদের কাছে ফের দোকান হস্তান্তরের চাপ দিলে তারা আরও ১৭ লাখ টাকা দাবি করেন। অন্যথায় দোকানের দখল হস্তান্তর করা হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেয়। তাদের ওই অর্থ দাবির প্রতিবাদ করলে তারা ব্যবসায়ী মিঠুকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। বর্তমানে দোকান ক্রেতা মামলার বাদি মিঠু নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন জানিয়ে বলেন, এসব ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্লাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দকেও অবহিত করি। পরে তারাও বিষযটি সমাধানের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। তিনি বলেন, তাদের হুমকি ধামকি ও দোকান বুঝে না দেয়ায় বাধ্য হয়ে আইনের আশ্রয় নিয়েছি।
জানতে চাইলে, সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহজাহান পাশা মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অভিযোগের তদন্ত চলছে। তদন্তের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।
অভিযোগ সম্পর্কে সৈয়দপুর প্লাজা মার্কেটের প্রকল্প পরিচালক গোলজার আহমেদের সাথে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। তিনি বলেন আমি শুধু স্বাক্ষী ছিলাম। তারপরেও আমার বিরুদ্ধে মামলা হওয়ায় আমি উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়েছি। ঘটনার বিস্তারিত জানতে অফিসে আসার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন মামলার অন্য আসামীদের জামিন হয়েছে কিনা তা তিনি জানেন না।

 

Print Friendly, PDF & Email

About dimlanews

Related Posts

Leave a Reply

*

সম্পাদকের বক্তব্যঃ

তিস্তা নিউজ ২৪ ডটকম ভিজিট করুন এবং বিজ্ঞাপন দিন।